রংপুর রাজশাহী সারাদেশে

চলনবিল রক্ষায় করণীয় শীর্ষক আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত

মুক্ত চেতনা ডেস্ক : বাংলাদেশ পরিবেশ আইনবিদ সমিতি (বেলা) ও এসোসিয়েশন ফর ল্যান্ড রিফর্ম এন্ড ডেভেলপমেন্ট (এএলআরডি) যৌথ উদ্যোগে ভার্চুয়াল প্লাটফর্মে ‘চলনবিল রক্ষায় করণীয়’ শীর্ষক এক আলোচনা সভা বৃহস্পতিবার (২৯’এপ্রিল) ২০২১ খ্রি. অনুষ্ঠিত হয়।

ভার্চুয়াল প্লাটফর্মের আলোচনা সভায় প্রধান অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের পরিবেশ বিজ্ঞান ইনস্টিটিউটের চেয়ারম্যান প্রফেসর ড. গোলাম সাব্বির সাত্তার। হোষ্ট এর দায়িত্ব পালন করেন বেলা’র হেড অব প্রোগ্রাম মো. খোরশেদ আলম। মুল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন বেলা রাজশাহী কার্যালয় সমন্বয়কারী তন্ময় কুমার সান্যাল।

আলোচনায় অংশগ্রহন করেন চলনবিল রক্ষা আন্দোলন চাটমোহর পাবনার সদস্য সচিব এস এম মিজানুর রহমান, এএলআরডি, ঢাকার প্রোগ্রাম অফিসার (প্রশিক্ষণ) মির্জা আজিম হায়দার, টিএসপি, ভাঙ্গুড়া, পাবনার পরিচালক সরকার মোহাম্মদ আলী, স্বপ্ন বগুড়ার নির্বাহী পরিচালক জিয়াউর রহমান, প্রথম আলো পাবনা প্রতিনিধি সরোয়ার উল্লাস, ডেইলি স্টার পাবনা প্রতিনিধি আহমেদ হুমায়ুন কবির তপু, বাংলাদেশ নিউজ ও এশিয়ান টিভির পাবনা প্রতিনিধি শফিক আল কামাল, বেলা রাজশাহী কার্যালয়ের ফিল্ড অফিসার মো. সাইফুল ইসলামসহ রাজশাহী ও রংপুর বিভাগের বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের প্রতিনিধি প্রমুখ। শেষে ধন্যবাদ জ্ঞাপন করেন বেলা’র প্রোগ্রাম কো-অর্ডিনেটর এম এম মামুন।

বক্তাগণ বলেন , বাংলাদেশের উত্তর-পশ্চিমাঞ্চলে অবস্থিত দেশের সবচেয়ে বড় ও গুরুত্বপূর্ণ জলাধারায় প্রায় ১৫০টি ছোট-বড় বিলের সমন্বয়ে চলনবিল গঠিত। এটি পাবনা, সিরাজগঞ্জ, নাটোর ও নওগা জেলার উপর দিয়ে প্রবাহিত হয়েছে। বাংলাদেশে মিঠা পানিতে যে সকল মাছ পাওয়া যায় তার মধ্যে শিং, মাগু̧র, রুই, কাতলা, মৃগেল, বাচা, বাটকা, কালবাউশ, আইড়, বোয়াল, শোল, পাবদা, পুঁটি, বাইম, গজার, টাকি, চিংড়ী ইত্যাদি প্রায় ২৬০ প্রজাতির মাছ এই বিলে পাওয়া যেত। বর্তমানে ১৮০টিরও বেশী প্রজাতির মাছ বিলুপ্তের পথে।

এছাড়া চলনবিলে বালিহাঁস, তিরমূল, বাটুলে, মুরগীহাঁস, খয়রা, মানিক জোড়, ডুটরা, চা-পাখি, লোহাড়াং, মেমারু, বোতক, নলকাক, ফেফী, ডাহুক, চখা, বকধেনু, ইচাবক, রাতচোরা, ভুবনচিলা প্রাণি ও উদ্ভিদের মধ্যে কুমির, শুশুক (এক জাতের ডলফিন), সাপ, কচ্ছপ, ঝিনুক, শামুকসহ হাজারো জীব বৈচিত্রের আঁধার ছিল চলনবিল। হারাতে বসেছে আজ বিলের সব কিছু। এ সকল দেশি মাছ, পশু-পাখি, প্রাণি এবং উদ্ভিদের জীব বৈচিত্র রক্ষায় আমাদের আন্তরিকতার সাথে কাজ করতে হবে। সেই লক্ষে চলনবিলের যে কোন উন্নয়ন প্রকল্প গ্রহন করলে স্থানীয় ও বিশেষজ্ঞদের সাথে জনপ্রতিনিধিদের সমন্বয় সাধন করে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহন করতে হবে জানান আলোচনায় অংশ্রগ্রহনকারীরা।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *